দলীয় শ্লোগান:

 

বাংলাদেশ জিন্দাবাদ

 

শহীদ জিয়া অমর হোক

 

 

 

 

উপরে যে নিউজ ক্লিপটি দেখতে পাচ্ছেন এটির ডিটেইলস দেখুন: নিউজ পেপার: The Times of London. ডেট অব রিপোর্ট : December 16 , 1971. রিপোর্টার : Peter O' Loughlin. এই রিপোর্টটি ঠিক যেমনিভাবে ১৬ ডিসেম্বরের চূড়ান্ত বিজয়ের মুহূর্তের রেসকোর্সের ময়দানের টুকরো টুকরো ঘটনাগুলো জানিয়ে দেয় ঠিক তেমনি বাংলাদেশের রাজনীতির অনেক বড় এক প্রচলিত মিথ্যাকেও ডিসমিস করে। বলা হয় "বাংলাদেশ জিন্দাবাদ" একটি পাকিস্তানী ভাবাদর্শের শ্লোগান। ৭৫ পরবর্তী সময়ে এটির আবির্ভাব। " জয় বাংলা " কে প্রতিস্থাপন করার উদ্দেশ্যেই "বাংলাদেশ জিন্দাবাদ" উচ্চারন করা হয়। "জিন্দাবাদ" এদেশের গণমানুষের শ্লোগান নয় , চেতনার অংশ নয়। আসলেই কি সেটা সত্য?

 

 

ইউটিউবে সম্পূর্ণ আন-এডিটেড ক্লিপটি শুনুন

 

 

পরিষ্কার শোনা যাচ্ছে: একেবারে শুরুতেই : কেউ একজন মিছিলের নেতার মত করে শ্লোগান দিচ্ছে "বাংলাদেশ" , অজস্র মানুষ তার সাথে সুর মিলিয়ে শ্লোগান দিচ্ছিলো "জিন্দাবাদ"। অনেকটা মিছিলে যেভাবে সবাই শ্লোগান দেয়, মিছিলের নেতা অর্ধেকটা বলে থেমে যায় , বাকিরা পুরো শ্লোগান শেষ করে। একই সংগে "জয় বাংলা" শ্লোগান যে শোনা যাচ্ছিলো তা বলাই বাহুল্য। ক্লিপটির শুরুর দিকে কিছুটা বেশী অস্পষ্ট হলেও ১৪-১৭ সেকেন্ড পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে শুনুন। বেশ জোরালো ভাবেই শোনা যাচ্ছে "জিন্দাবাদ"।

 


পিটার ও' লফলিনের রিপোর্টের পুরোটা :

 


 

 

 

পুরো রিপোর্টটির দরকারী ক্লিপটি দেখুন :

 

 

 

 

খুব পরিস্কারভাবেই দেখতে পাচ্ছেন রিপোর্ট টিতে কি লেখা রয়েছে। তারপরও দরকারী অংশটুকুর বাংলা অনুবাদ দেয়া হলো : তখনো গুলি ফোটানোর শব্দ শোনা যাচ্ছিলো পেছনে , উপলক্ষ : পড়ন্ত বিকেলের আলোয় অসংখ্য মানুষ ঢাকা রেসকোর্স ময়দানের সামনে সাজিয়ে রাখা একটি টেবিল ঘিরে রেখেছে আর বিমর্ষ মূর্তি নিয়ে লেফটেন্যান্ট জেনারেল এ এ কে নিয়াজী আত্নসমর্পণের দলিল স্বাক্ষর করছেন।

রেসকোর্স ময়দানকে কর্ডন করে রাখা ভারতীয় সেনাদলের পেছনে শতশত বাঙালি "জিন্দাবাদ" শ্লোগানে মুখর।